ই-পেপার

শেবাচিমের সিসিইউতে ‍আগুন, ‍আতঙ্কে রোগীর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: December 15, 2021

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনারী কেয়ার ‍ইউনিট- ‘সিসিইউ’ তে বৈদ্যুতিক গোলযোগের কারণে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ‍এতে বড় ধরনের কোন ক্ষয়ক্ষতি না হলেও ‍আতঙ্কে চিকিৎসাধীন ‍এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে গুঞ্জন ‍উঠেছে।

মৃত্যু হওয়া ৬৫ বছর বয়সী ওই রোগীর নাম রনদী। তিনি বরিশালের গৌরনদী ‍উপজেলার বাসিন্দা। গত সোমবার তাকে শেবাচিম হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে হার্টের সমস্যার কারণে সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে ‍আতঙ্কে রোগীর মৃত্যুর গুঞ্জন সঠিক নয়। কেননা ঘটনার প্রায় বিশ মিনিট পরে মৃত্যু হয়েছে ওই রোগীর। তাছাড়া তার অবস্থা ‍এমনেতেই ‍আশঙ্কাজনক ছিলো বলে জানিয়েছেন ঘটনাস্থলে থাকা শেবাচিম হাসপাতালের সেবা তত্ত্বাবধায়ক সেলিমা ‍আক্তার।

তিনি জানান, রাত ‍একারোটার দিকে হঠাৎ করেই হাসপাতালের পশ্চিম পাশের দ্বিতল ভবনে সিসিইউতে চার নম্বর বেডের ওপরে অক্সিজেন সঞ্চালন বক্স বিকট শব্দে বিষ্ফোরণ করে ‍আগুন লেগে যায়। ‍এতে সিসিইউসহ হাসপাতালের অন্যান্য ওয়ার্ডগুলোতেও ‍আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। রোগীরা প্রাণ রক্ষায় ‍এদিক ওদিক ছোটা ছুটি করে হাসপাতালের সামনে নিরাপদ ‍আশ্রয় নেয়।

ওই নার্সিং কর্মকর্তা বলেন, ‘আগুনের খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়া হয়। কিন্তু তারা ঘটনাস্থলে পৌছাবার ‍আগেই হাসপাতালের স্টাফরা অগ্নি নির্বাপক যন্ত্রের ‍সহযোগিতায় ‍আগুন নিয়ন্ত্রণে ‍আনে। পাশাপাশি সিসিইউ’র রোগীদের পার্শ্ববর্তী পোস্ট সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।

এদিকে, প্রত্যক্ষদর্শী রোগী ‍এবং তাদের স্বজনদের দাবি অগ্নিকাণ্ডের খবরে ‍আতঙ্কিত হয়ে সিসিইউ‘র চৌদ্দ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন রনদী নামের ‍এক ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধর মৃত্যু হয়েছে। তাকে সোমবার সিসিইউতে ভর্তি করা হয়।

এ প্রসঙ্গে ঘটনাস্থলে থাকা শেবাচিম হাসপাতালের সেবা তত্ত্বাবধায়ক সেলিনা ‍আক্তার বলেন, ‘আগুন নিয়ন্ত্রণের অন্তত বিশ মিনিট পরে ওই রোগীর মৃত্যু হয়েছে। তবে তিনি ‍আগে থেকেই মুমূর্ষ অবস্থায় ছিলেন। ‍এটা ‍আতঙ্কে মৃত্যু হয়েছে কিনা সেটা নিশ্চিত করে বলা সম্ভব নয়।

এ প্রসঙ্গে শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডা. ‍এইচ.এম সাইফুল ‍ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। ‍হাসপাতালের নিজস্ব ব্যবস্থায় ‍আগুন নিয়ন্ত্রণে ‍আনা হয়েছে। ‍এতে ক্ষয়ক্ষতি কতটা হয়েছে সেটা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

রোগী মৃত্যুর বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ঘটনার পরে ‍একজন রোগীর মৃত্যু হয়েছে ‍এটা সত্যি। তবে ‍আগুন কিংবা ‍আতঙ্কে তার মৃত্যু হয়নি। কেননা সে ঘটনাস্থল থেকে অনেক দূরে ছিলো। রোগের কারণেই মৃত্যু হয়েছে বলেন তিনি।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন