ই-পেপার

কলাপাড়ায় প্রতারনার ফাঁদে কলেজছাত্রী

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিবেদক | আপডেট: January 12, 2022

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় প্রতারকের খপ্পড়ে পড়ে আসমা বেগম এক কলেজ শিক্ষার্থীর তিন লক্ষ তেইশ হাজার সাতশত টাকা খোয়া গেছে। একটি বিকাশের দোকান থেকে ওই শিক্ষার্থী টাকা পাঠানোর পর মোবাইল নম্বরটি সাথে সাথে বন্ধ করে দিলে প্রতারনার বিষয়টি ধরা পড়ে। মঙ্গলবার শেষ বিকেলে পৌরশহরের ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আসমা বেগম বরগুনার আমতলী সরকারী কলেজের ডিগ্রি শেষ পর্বের ছাত্রী। সে আমতলীর সেকেন্দারখালী গ্রামের বাবুল হাওলাদারের মেয়ে। এ ঘটনাটি ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে কলাপাড়্ াপৌর এলাকায় টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়।

প্রতারনার শিকার আসমা সাংবাদিকদের জানান, তাকে সোমবার দুপুরে ০১৮৯৪২৮১০৪৪ থেকে মোবাইল করে শিক্ষামন্ত্রনালয়ের পরিচয় দিয়ে উপবৃত্তি বাবদ তাকে ১০ লাখ টাকা প্রদান করবে বলে আশ্বাস দেন। তবে তাকে চার লক্ষ টাকা পাঠাতে হবে বলে শর্ত জুড়ে দেয় ।

আসমা সরল বিশ্বাসে রুপ টেলিকম সেন্টার থেকে ১৩ টি নাম্বারে ৩ লক্ষ ২৩ হাজার ৭০০ টাকা বিকাশ করে । পরবর্তীতে ১০ লাখ টাকা আসবে সেই টাকা রুপ টেলিকম সেন্টারে পরিশোধ করে দেবে। টাকা সেন্ট হওয়ার পরপরই প্রতারকের মোবাইল নাম্বারটি বন্ধ করে দেয়। পরে ওই ছাত্রীকে রুপ টেলিকমের মালিক সুব্রত আটকে রেখে সংশ্লিস্ট পৌর কাউন্সিলর মো: তারিকুজ্জান তারেকের জিম্মায় রাখে।

কাউন্সিলর তারিকুজ্জামান তারেক বলেন, ওই শিক্ষার্থীর অভিভাবককে খবর দেয়া হয়েছে।

রুপ টেলিকমের মালিক সুব্রত ঘরামী জানান, টাকা সেন্ট করার পর তার প্রতারনার বিষয়টি বোধগম্য হয়। তবে মহিলা সাথে সাথে পরিশোধ করবে বলে এ বিশ্বাসে ওই টাকা সেন্ট করেছেন বলে তিনি জানান।

কলাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: জসিম গনমাধ্যমকে বলে, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে , তদন্ত করে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন