ই-পেপার

অবৈধ ইটভাটার ছবি তোলায় বরিশালে সাংবাদিককে হত্যার হুমকি

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: January 16, 2022

ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন অমান্য করে বরিশালের উজিরপুরে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ইটভাটার ছবি তোলায় দৈনিক আমার সংবাদের বরিশাল প্রতিনিধি জহির খানকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। একই সাথে ওই সংবাদকর্মীকে মিথ্যা মামলায় জড়ানোর হুমকিও দিয়েছেন উপজেলার দক্ষিণ শিকারপুর গ্রামে অবস্থিত ত্রিআর ব্রিকস নামের একটি ইটভাটার মালিক রফিকুল ইসলাম (৪৫)।

এ ঘটনায় শনিবার (১৫ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে সাংবাদিক জহির খান নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে হুমকিদাতা ইটভাটা মালিকের বিরুদ্ধে উজিরপুর মডেল থানায় সাধারন ডায়েরি (জিডি) করেছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলী আর্শাদ।

সাংবাদিক জহির খান উজিরপুর পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের মো. বাবুল খানের ছেলে। তিনি জাতীয় দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার বরিশাল জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ও উজিরপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি।

থানায় দায়েরকৃত সাধারণ ডায়েরি সূত্রে জানা গেছে, ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন এবং পরিবেশ সংরক্ষণ আইন অমান্য করে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গড়ে ওঠা কমপক্ষে ১৫টি ইটভাটার কার্যক্রম চলছে। ওইসব অবৈধ ইটভাটা নিয়ে সাংবাদিক জহির খান তার কর্মরত পত্রিকায় সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে তথ্য ও ছবি সংগ্রহ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় গত শনিবার (১৫ জানুয়ারি) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সাংবাদিক জহির খান তার সহকর্মী তানভীর ইসলামকে নিয়ে উপজেলার দক্ষিণ শিকারপুর গ্রামে অবস্থিত ত্রিআর ব্রিকস নামের ওই ইটভাটায় যান। সেখানে গিয়ে তারা দেখতে পান ওই ভাটায় ইট পোড়ানোর প্রস্তুতি চলছে। ইট পোড়ানোর জন্য জড়ো করা হচ্ছে কাঠ। এ সময় সাংবাদিক জহির খান ওই ইট ভাটার কয়েকটি ছবি তোলেন। এরপরই ইটভাটার মালিক রফিকুল ইসলাম ছবি তোলার জন্য সাংবাদিক জহির খানকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করেন। তখন সাংবাদিক জহির নিজের পরিচয় দিয়ে গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে ভাটা মালিক রফিকুল তাকে মারধরে উদ্যত হয়। এ সময় ওই ইটভাটায় আগে থেকে অবস্থান করা মুন্ডপাশা গ্রামের সোহাগ, শান্ত হাওলাদার ও আটিপাড়া গ্রামের রানা সরদারসহ আশপাশের লোকজনের সামনেই সাংবাদিক জহিরকে হত্যা ও মিথ্যা মামলায় জড়ানোর হুমকি দেন ভাটা মালিক রফিকুল।

সাংবাদিক জহির খান বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তাকে সন্ত্রাসী ভাটা মালিক রফিকুলের রোষানলে পড়তে হয়েছে। তিনি জীবন নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতা বোধ করছেন।

উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলী আর্শাদ বলেন, সাধারণ ডায়েরী (জিডি) নেওয়া হয়েছে। অভিযোগের আলোকে ঘটনা তদন্ত করেদ্রæত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে বরিশাল সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মো. মাসুদ রানা ও সাধারণ সম্পাদক মো. আরিফ হোসেনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে অভিযুক্ত ভাটা মালিকের বিরুদ্ধে দ্রæত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়াসহ সাংবাদিক জহির খানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন।

বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও দৈনিক জনকন্ঠ’র বরিশাল ব্যুরো প্রধান খোকন আহম্মেদ হীরা বলেন, নিজেদের অপরাধ ঢাকতে অপরাধীরা সারাদেশে সংবাদকর্মীদের ওপর চড়াও হচ্ছেন। এসব অপরাধীদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। সাংবাদিক জহিরের হুমকিদাতাকে দ্রুত আইনে সোপর্দ করে শাস্তির আওতায় নেওয়ার দাবি জানান তিনি।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন